Type to search

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব দোল পূর্ণিমা বা হোলি সম্পন্ন

জাতীয়

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব দোল পূর্ণিমা বা হোলি সম্পন্ন

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব দোল পূর্ণিমা বা হোলি উৎসব সম্পান্ন

প্রিয়ব্রত ধর.অভয়নগর প্রতিনিধি:

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অন্যতম ধর্মীয় উৎসব দোল পূর্ণিমা বা হোলি উৎসব আজ শুক্রবার। বাংলাদেশে এ উৎসবটি ‘দোলযাত্রা’ ও ‘দোল পূর্ণিমা’ নামে পরিচিত। এ উৎসবের অপর নাম বসন্ত উৎসব। ফাল্গুন মাসের পূর্ণিমা তিথিতে দোলযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়।

এ উৎসব ঘিরে  সারাদেশে মন্দিরে মন্দিরে পূজা, হোমযজ্ঞ, প্রসাদ বিতরণসহ বিভিন্ন ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন করেন হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। অভয়নগর ইসকন মন্দিরেও দোল উৎসবের আয়োজন হয়েছে। তবে করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতির কারণে উৎসব সীমিত পরিসরে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে উদযাপন করা হয়েছে।

সনাতন ধর্মাবলম্বীদের বিশ্বাস, ফাল্গুনী পূর্ণিমা বা দোল পূর্ণিমার দিন বৃন্দাবনে শ্রীকৃষ্ণ আবির বা গুলাল নিয়ে রাধিকা ও অন্যান্য গোপীদের সঙ্গে রং খেলায় মেতেছিলেন। সেই থেকে দোল উৎসবের প্রচলন। এ কারণেই দোলযাত্রার দিন সকালে রাধা-কৃষ্ণের বিগ্রহে আবির-গুলাল মেখে দোলায় চড়িয়ে কীর্তনগান সহকারে শোভাযাত্রায় বের করা হয়। এরপর ভক্তেরাও মাতেন আবির ও গুলাল খেলায়। ফাল্গুনের এ পূর্ণিমা তিথিতেই চৈতন্য মহাপ্রভুর জন্ম। ফলে এ দিনটিকে গৌর পূর্ণিমাও বলা হয়ে থাকে।

দোলযাত্রা উৎসবের একটি ধর্মনিরপেক্ষ দিকও রয়েছে। এদিন সকাল থেকেই নারী-পুরুষ নির্বিশেষে আবির, গুলাল ও বিভিন্ন প্রকার রং নিয়ে খেলায় মত্ত হন। দোল পূর্ণিমায় শান্তিনিকেতনে বিশেষ নৃত্যগীতের মাধ্যমে বসন্তোৎসব পালনের রীতি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের সময়কাল থেকেই চলে আসছে।

বিশ্বের অনেক দেশে এ উৎসব শ্রীকৃষ্ণের দোলযাত্রা নামে অধিক পরিচিত। তবে প্রতিবেশী দেশ ভারতের পশ্চিমবঙ্গ, মাদ্রাজ, উড়িষ্যা প্রভৃতি স্থানে ‘দোল উৎসব’ এবং উত্তর, পশ্চিম ও মধ্য ভারত ও নেপালে ‘হোলি’ নামে পরিচিত। কোনো কোনো স্থানে এ উৎসব ‘বসন্ত উৎসব’ নামেও পরিচিত। আবির খেলার উচ্ছ্বাসে মাতেন তরুণ-তরুণীরা। নানা রঙে-ঢঙে হোলির আনন্দে শামিল হন সব ধর্ম-বর্ণের আবালবৃদ্ধবনিতা।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *