Type to search

ভবদহ জলাবদ্ধতা থেকে রক্ষা পেতে হাজারা নারী পুরষের পদযাত্রা

অভয়নগর

ভবদহ জলাবদ্ধতা থেকে রক্ষা পেতে হাজারা নারী পুরষের পদযাত্রা

আমডাঙ্গা খাল পুন:খনন ও টিআরএম প্রকল্প দ্রুত চালুর দাবিতে হাজারো নারী পুরুষের আমডাঙ্গা খাল অভিমুখে পদযাত্রা:

 

প্রিয়ব্রতধর:

জলাবদ্ধতা থেকে রক্ষা পেতে আমডাঙ্গা খাল পুন:খনন ও বিল কপালিয়ায় দ্রুত টিআরএম বাস্তবায়নের দাবিতে অভয়নগরে পদযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির উদ্যোগে আয়োজিত হাজারো নারী পুরুষ পদযাত্রায় অংশগ্রহণ করেন। শনিবার সকাল থেকে দপুর পর্যন্ত আমডাঙ্গা খাল অভিমুখে এ পদযাত্রা কর্মসূচি পালিত হয়।

 

 

যশোর জেলার অভয়নগর উপজেলা সদর নওয়াপাড়া ইনস্টিটিউট থেকে সকাল ১১ টায় শুরু হওয়া পদযাত্রটি উদ্বোধন করেন নওয়াপাড়া ইনস্টিটিউটের সাধারণ সম্পাদক, অভয়নগর উপজেলা আ.লীগ নেতা , অভয়নগর প্রেসক্লাবের প্রধান উপদেষ্টা ফারুক হোসেন। এ সময় উদ্বোধনী বক্তব্য রাখেন সংগ্রাম কমিটির প্রধান উপদেষ্টা ইকবাল কবির জাহিদ। উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি বলেন, ‘ভবদহ জলাবদ্ধা থেকে রক্ষা পেতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে ১৫ বার স্মারক লিপি প্রদান করেছি। আমলা ও স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা টিআরএম প্রকল্প চালু করার ক্ষেত্রে বিরোধীতা করছে। আন্তর্জাতিক ভাবে ডেল্টা প্লান- ২১০০ বাস্তাবায়নের জন্য ভবদহ অঞ্চলে টিএরএম(টাইডল রিভার ম্যানেজমেন্ট) প্রকল্প বাস্তবায়ন করার সুপারিশ রয়েছে। আমলা ও জনপ্রতিনিধিরা এলাকাকে জলাভূমি আখ্যায়িত করে টিআরএম প্রকল্পের মাধ্যমে বিল উঁচু করণ প্রকল্প বাতিল করার কথা বলেছেন। তারা সেচ প্রকল্পের মাধ্যমে এ ব্যাপক এলাকার জলাবদ্ধা দূর করার জন্য আবারো ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকার স্যালোম্যশিন প্রকল্প গ্রহণ করেছে। তিন বছর যাবৎ ওই প্রকল্প চলছে কিন্তু জলাবদ্ধতা নিরসনে এক বিন্দু কাজ হয়নি। ওই প্রকল্পে লাখ লাখ ইউনিট বিদ্যুতের অপচয় হচ্ছে।’এ সময় আন্দেলনে একাত্বতা ঘোষণা কওে বক্তব্য রাখেন ইসলামী শাসনতন্ত্র আন্দোলনের নেতা এইচ এম মহসিন।
উদ্বোধনের পর ভবদহ অঞ্চাল থেকে আগত প্রায় এক হাজার নারী পুরুষ পদযাত্রায় অংশ গ্রহন করেন। তারা যশোর- খুলনা মহাসড়ক ধরে ৫ কিলোমিটার পথ পায়ে হেটে দুপুর ১-৩০ টায় আমডাঙ্গা খাল পড়ে পৌঁছায়। পদযাত্রার সময় তাদের হাতে নানা দাবি সম্বলিত প্লা কার্ড বহন করতে দেখা যায়। তাতে লেখা রয়েছে এক বছর আগে বরাদ্দ হওয়া আমডাঙ্গা খাল পুন: খনন প্রকল্প দ্রুত চালু কর, মানবিক বিপর্যায় রোধে খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত কর, বিল কপালিয়ায় টিআরএম প্রকল্প চালু কর, এলাকার সব নদী খাল দখল মুক্ত কর, পানি উন্নয়ন বোর্ডের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তাদের শাস্তি নিশ্চত কর ইত্যদি।
পদযাত্রায় অংশগ্রহণকারি সুন্দলী গ্রামের বাসিন্দা বৃদ্ধ সন্ন্যাসী কবিরাজ(৮৫) বলেন, ভবদহের বিলে তার ৫ বিঘা ধানী জমি রয়েছে। তার পরিবার কৃষি কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। ৫/৬ বছর যাবত বিলে কোন ফসল হয় না। তার পরিবারে খাদ্যাভাব দেখা দিয়েছে। এ ছাড়া বর্ষার মৌসুম এলেই তার বাড়ির উঠানে কোমর পর্যন্ত জল জমে। ৬ থেকে ৭ মাস পর্যন্ত ওই জলের মধ্যে তাদের বসবাস করতে হয়।
বেদভিটা গ্রামের কৃষক বিরেন্দ্র নাথ মল্লিক জানান, গত বছর শ্রাবণ মাসে তার বাড়ির উঠানে কোমর পর্যন্ত জল উঠেছিলো আর ওই জল ৮ মাস পর বাড়ি থেকে নামে। জলের সাথে সংগ্রাম করে তাদের বেঁচে থাকতে হয়। তার মতে আমডাঙ্গা খালটি সংস্কার হলে এলাকা এ ভয়াবহ জলাবদ্ধতা থেকে রক্ষা পাবে।
পদযাত্রটি আমডাঙ্গা খালে পৌঁছে মানববন্ধনে মিলিত হয়। মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন, ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির আহবায়ক রণজিত বাওয়ালী, সদস্য সচিব চৈতন্য কুমার পাল, মনিরামপুর উপজেলা কমিটির আহবায়ক গাজী আব্দুল হামিদ, ভবদহ পানি নিষ্কাশন সংগ্রাম কমিটির নেতা অধ্যাপক অনিল বিশ^াস,শিবপদ বিশ^াস, আব্দুল আজিজ, সাধন মন্ডল, শেখর বিশ^াস, লুৎফর রহমান, মঞ্জুরুল আলম, নারী নেত্রী পারভীন আক্তার প্রমুখ। এ সময় খাল পাড়ের ক্ষতিগ্রস্থ লোকদের অবস্থা তুলে ধরে বক্তব্য রাখেন, দীনোবন্ধ সরকার ও মধুসুদন পাল।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *