Type to search

উত্তরাঞ্চলে শীতের আমেজ

অন্যান্য

উত্তরাঞ্চলে শীতের আমেজ

হিমালয়ের কাছে অবস্থান হওয়ায় উত্তরের জেলা ঠাকুরগাঁওয়ে একটু আগেই আসে শীত।

ভোর থেকে সকাল পর্যন্ত হালকা কুয়াশায় ঢেকে থাকে উত্তরের জেলা ঠাকুরগাঁও। হিমালয়ের কাছে অবস্থান হওয়ায় অন্য জেলার তুলনায় এখানে শীতের তীব্রতাও সবচেয়ে বেশি হয়। পঞ্জিকার হিসেবে শীতের আগমন ঘটতে এখনো মাস দেড়েক বাকি, তবে এবার বেশ আগেভাগেই শীতের বার্তা জানান দিতে শুরু করেছে।

কার্তিক মাসের শুরুতে কয়েক দিনের বৃষ্টির কারণে চলতি বছর আগাম শীত অনুভব হচ্ছে উত্তরের বিভিন্ন জেলায়। তবে ঠাকুরগাঁওয়ে সন্ধ্যা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত বেশ শীত অনুভূত হচ্ছে। দিনের বেলা কিছুটা গরম থাকলেও সন্ধ্যা নামার পর থেকেই কুয়াশায় আস্তে আস্তে ঢেকে যায় শহরের রাস্তাঘাট। শুক্রবার জেলায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে ১৪ ডিগ্রী সেলসিয়াস।

শীতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। ফলে শীতের আগমনের সঙ্গে সঙ্গে এ বিষয়ে জনমনে শঙ্কাও রয়েছে।

আধুনিক সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিক্যাল অফিসার রাকিবুল আলম চয়ন জানান, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় আগের ৫০ বেডের পাশাপাশি আরও ৩০টি বেড বাড়ানো হয়েছে। আমরা আশঙ্কা করছি যে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এই শীতে আঘাত হানতে পারে। শীতের এই সময়ে ফুসফুসে বিভিন্ন ধরণের রোগের সংক্রমণ দেখা দেয়, তাই সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।

জেলা প্রশাসক ড. কে এম কামরুজ্জামান সেলিম বলছেন, ঠাকুরগাঁওয়ে শীতকে দুর্যোগ হিসেবে মনে করা হয়। তবে শীত মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, এ বছরও এ দুর্যোগে যাতে মানুষ কষ্ট না পায়, সেজন্য আমরা ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়ে রেখেছি। এছাড়াও আমাদের এই জেলাতে যাতে বাড়তি বরাদ্দ দেয়া হয়, এ বিষয়ে মন্ত্রণালয়ে একটি চিঠিও পাঠিয়েছি।

সূত্র, DBC বাংলা

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *