Type to search

আমাজনে শুরু হয়েছে দাবানলের মৌসুম, এবার আরো ভয়াবহ

আন্তর্জাতিক

আমাজনে শুরু হয়েছে দাবানলের মৌসুম, এবার আরো ভয়াবহ

অনলাইন ডেস্কঃ  আমাজনে শুরু হয়ে গেছে দাবানলের মৌসুম। এবারের মৌসুমটি এক দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপভাবে শুরু হয়েছে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে আন্তর্জাতিক পরিবেশবাদী সংস্থা গ্রিনপিস। সংবাদমাধ্যম দ্য গার্ডিয়ান এ খবর জানিয়েছে।

গ্রিনপিস জানিয়েছে, চলতি আগস্ট মাসের প্রথম ১০ দিনে আমাজনের ১০ হাজার ১৩৬টি স্থানে আগুন জ্বলতে দেখা গেছে। যা গত বছরের তুলনায় ১৭ শতাংশ বেশি।

ব্রাজিল সরকারের দেওয়া তথ্য বিশ্লেষণ করে গ্রিনপিস দেখিয়েছে, দেশটির কেন্দ্রীয় সংরক্ষিত বনাঞ্চলে গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এবার দাবানলের সংখ্যা বেড়েছে ৮১ শতাংশ। গত বছর আমাজনের ভয়াবহ দাবানল আন্তর্জাতিক সংকটের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। গ্রিনপিসের দেওয়া নতুন তথ্যে এবারের দাবানল গত বছরের তুলনায় আরো ভয়াবহ হওয়ার আশঙ্কা তৈরি হয়েছে।

গ্রিনপিস ব্রাজিলের কর্মকর্তা রোমুলো বাতিস্তা বলেন, ‘পরিবেশ নিয়ে এই (ব্রাজিল) সরকার প্রয়োজনীয় পদক্ষেপের ঘাটতি থাকার সরাসরি ফলাফল এই (দাবানল)। গত বছরের তুলনায় এবার আরো বেশি দাবানল দেখতে পাচ্ছি।’

এদিকে আমাজন নিয়ে এমন আশঙ্কার বার্তা ব্রাজিল সরকার একেবারে আমলে নিচ্ছে না। আমাজনে কোনো দাবানলের অস্তিত্ব আছে, তা স্বীকারই করছে না ব্রাজিল সরকার। সম্প্রতি আমাজন বনাঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে সৃষ্ট দাবানলের ছবি ও ভিডিও অন্তর্জালে ছড়িয়ে পড়ার পর, ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো গত মঙ্গলবার দাবানলের ঘটনাকে ‘মিথ্যা’ বলে উড়িয়ে দেন।

মাঝেমধ্যেই বেফাঁস কথা বলে বিতর্কে জড়িয়ে পড়েন ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো। এবার তিনি বিতর্কে জড়ালেন  আমাজন জঙ্গলে আগুন লাগার প্রসঙ্গে মন্তব্য করে। সারা বিশ্বের মানুষ যে দাবানলের ছবি দেখেছে, ভিডিও দেখেছে, সেগুলোকে ডাহা মিথ্যা বলে উড়িয়ে দিতে চাইলেন তিনি। আমাজনে দাবানলের ঘটনার অস্তিত্বের কথাই অস্বীকার করেন তিনি। জাইর বলসোনারো বলেছেন, যারা এসব বলছে,  তারা বনের ভেতর কোনো আগুন খুঁজে পাবে না।

আমাজনকে রক্ষায় এ অঞ্চলের দেশগুলোর মধ্যে হওয়া লেটিসিয়া চুক্তির অংশীদার দেশগুলোর বৈঠকে জাইর বলসোনারো বলেন, ‘আমাজনে অগ্নিকাণ্ড বাড়ছে বলে যে দাবি করা হচ্ছে, তা মিথ্যা। কাজেই সঠিক সংখ্যা জানিয়ে দিয়ে আমাদের পাল্টা লড়াই চালিয়ে যেতে হবে।’

অথচ, ব্রাজিল সরকারের প্রকাশিত তথ্য থেকেই জানা যাচ্ছে, আমাজন অঞ্চলজুড়ে দাবানলের ঘটনা বাড়ছে। গত বছরও আমাজনে দাবানলের কথা অস্বীকার করেছিলেন বলসোনারো। গত মঙ্গলবার তিনি যখন দাবানলের কথা অস্বীকার করছেন, তখনো ব্রাজিলের আমাজোনাস প্রদেশের আপুই শহরে আগুন থেকে সৃষ্ট ধোঁয়ার কুণ্ডলি আকাশের দিকে উঠতে দেখা গেছে।

ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট জাইর বলসোনারো বলেন, ‘আগুন ও বন নিধনের বিরুদ্ধে আমরা সর্বাত্মক লড়াই করছি। কিন্তু তারপরও আমাদের সমালোচনা করা হচ্ছে।’

বলসোনারোর মন্তব্যের কড়া সমালোচনা করছেন অনেকেই। বারবার যে আগুন আমাজনে দেখা গেছে, তাকে কীভাবে ব্রাজিলের প্রেসিডেন্ট মিথ্যা বলে চালাতে চাইছেন, তা অনেকেই বুঝতে পারছেন না।

২০১৯ সালের আগস্টে আমাজনে দাবানল ভয়াবহ আকারে বেড়ে গিয়েছিল। গত বছরের প্রথম আট মাসে আমাজনে ৭৫ হাজারের বেশি দাবানলের ঘটনা রেকর্ড করা হয়েছিল।

পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে থাকা অক্সিজেনের ২০ শতাংশেরই উৎস বিশ্বের সবচেয়ে বড় রেইনফরেস্ট আমাজন। এ কারণে আমাজনকে ‘পৃথিবীর ফুসফুস’ আখ্যা দেওয়া হয়। আমাজন জঙ্গল বিপুল কার্বন জমা রেখে বৈশ্বিক উষ্ণতার গতিকে খানিকটা শ্লথ রেখেছে। রেইনফরেস্ট অঞ্চল হওয়ায় বছরের বেশিরভাগ সময় আমাজনে আর্দ্রতা বজায় থাকে। তবে জুলাই-আগস্ট মাসে আমাজনের আবহাওয়া কিছুটা শুষ্ক হয়ে ওঠে।

Tags:

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *