Type to search

আমার নির্বাচনী এলাকায় সবকিছুর প্রতিই আমি সতর্ক দৃষ্টি নিবন্ধন করি ভোলা ৩ আসনের এমপি শাওন

জাতীয়

আমার নির্বাচনী এলাকায় সবকিছুর প্রতিই আমি সতর্ক দৃষ্টি নিবন্ধন করি ভোলা ৩ আসনের এমপি শাওন

মোঃ সাইফুল ইসলাম আকাশ :ভোলা প্রতিনিধি: ভোলা ৩ আসনে সংসদ সদস‍্য হিসেবে আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন নির্বাচিত হওয়ার পর একের পর এক পরিবর্তন এসেছে ভোলা ৩ আসনে ( লালমোহন- তজুমদ্দিন )।
এই পরিবর্তন কারন জানতে চাইলে এমপি শাওন বলেন আমার নির্বাচনী এলাকায় সবকিছুর প্রতিই আমি সতর্ক দৃষ্টি নিবন্ধন করি। তম্মধ্যে শিক্ষা খাতের প্রতি নজর আমার একটু বেশিই থাকে। কারন, আজকের এই শিক্ষার্থীগণই আগামীর বাংলাদেশের হাল ধরবে। প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীগণের লেখাপড়ার খোঁজখবর নেওয়াসহ সার্বিক সুষ্ঠু পরিবেশে যেন ছাত্র-ছাত্রীগণ লেখাপড়া করতে পারে সেদিকে যথেষ্ট দৃষ্টি দেই। লেখাপড়ার পাশাপাশি শিক্ষার্থীগণের চিত্তবিনোদনের প্রয়োজন রয়েছে। আর সে লক্ষেই প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন রকমের খেলাদুলাসহ বিভিন্ন সামাজিক ও শিক্ষামূলক অনুষ্ঠানে নিজ থেকেই উপস্থিত থাকি। বিএনপি-জামাত জোট সরকারের আমলে আমার নির্বাচনী এলাকা লালমোহন-তজুমদ্দিনের প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিলো সন্ত্রাসে অভয়ারণ্য। ছোট ছোট ছাত্রদের হাতে বিএনপি-জামাত অস্ত্র তুলে দিয়ে শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস ছড়িয়ে দিয়ে শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ নষ্ট করত। আমি নির্বাচিত হবার পরই শিক্ষার পরিবেশ ফিরিয়ে আনি। এখন আর কোথাও ইভটিজিং নেই। নেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে কোন হানাহানি। শিক্ষকদের এখন আর অপদস্থ হতে হয় না। নির্বিঘ্নে ও সুন্দর পরিবেশে এখন ছাত্র-ছাত্রীগণ লেখাপড়া করে যাচ্ছে। এখানেই আমার প্রশান্তি।
বিস্তারিত :একজন মানুষের বড় সার্থকতা,জিবনের পরম পাওয়া এবং সফলতা হলো, একটি অঞ্চলের আর্থ সামাজিক কাঠামো ও রাজনৈতিক দর্শনে মানুষের মধ্যে ব্যাপক পরিবর্তন আনা। একই সঙ্গে উন্নয়নে, সমৃদ্ধিতে পরিবর্তনের সেই ধারা ধরে রাখা। বলিষ্ঠ নেতৃত্বই সেই সফলতার মূল চাবিকাঠি। আর সেই সফল মানুষটি হলেন,ভোলা ৩ আসনের সকল স্তরের মাটি ও মানুষের নেতা গরিবের বন্ধু,অসহায় আর পথহারা মানুষের পথপ্রর্দশক ভোলা ৩ আসনের সংসদ সদস‍্য আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন।
ভোলা ৩ আসনের সংসদ আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে জড়িত ছিলেন,ছাত্রলীগ,যুবলীগ,আওমী লীগের প্রতিটি কার্যক্রমে ছিলেন সবার সামনে।পদ নিয়ে কখনো ও মাথা ব‍্যাথা ছিল না।
সবসময় ভাবতেন পদের চেয়ে দল বড়।তিনি সবসময় বাস্তবকে বিশ্বাস করতেন বর্তমানে ও দেখা যায় তিনি যা বলেন, তাই করেন। মানে নগদ কথা বলেন, নগদে কাজ করে দেখিয়ে দেন। যে যাই বলুক না কেন, তিনি বাকির খাতায় কোনো কাজ বা কথা ফেলে রাখেন না। এজন্য আমজনতা গরিব-বৃদ্ধ সবাই তাকে ভালোবেসে। জানা যায় বর্তমানে মরনব‍্যাধি করোনা ভাইরাসে যেখানে মা,বাবা থেকে সন্তান পৃথক হয়ে যায় সেখানে এই সংসদ সদস‍্য জনগনের সেবক হয়ে কাজ করে যাচ্ছেন,গরিব আর অসহায় পরিবারকে সহযোগিতা করেছেন।
এছাড়া ও জনগনের আস্থা আর ভালোবাসার প্রতীক হিসাবে সবাই দেখছে তাকে।করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে কর্মহীন হয়ে পড়া লক্ষ্য লক্ষ‍্য হতদরিদ্র পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী ও পৌছে দিয়েছেন এই সংসদ সদস‍্য।তিনি ছোট-বড় সবার সাথে চলছে সাধারণ ভাবে।যেখানেই অসহায় মানুষ সেখানেই ছুটে যান তিনি দেখেন না কে কোন দলের সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেন সাথে সাথে।সবাই দলমত নির্বিশেষে ভালোবেসে যাচ্ছেন তাকে। এমন অনন্য চলন,স্পষ্টবাদীতা, ভালোকে ভালো বলে পুরষ্কৃত করা,খারাপকে খারাপ বলে তিরষ্কার করার সৎ সাহস ধারণ করা, নিত্য গণমানুষের জন্য কল্যাণমুখী রাজনীতির চর্চা করা, নগদ সিদ্ধান্ত, নগদে সাফল্যে আজ তিনি রাজনৈতিক অঙ্গনেও বেশ আলোচিত

বিশেষণ, এতো আলোচনা, এতো সাফল্য। এগুলো তো একজন মানুষের জীবনে একদিনে অর্জিত হয় না। বিশেষ করে নিত্য প্রতিদ্বন্দ্বিতা মুখর রাজনীতির মাঠে। যেখানে পক্ষ-প্রতিপক্ষ দুইপক্ষেরই আতশ কাচের নিচে থাকতে হয় সৎ সাহসী রাজনীতিবিদকে। এখানেই একজন নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন।তিনি রাজনীতিতে এসেছেন গণমানুষের পাশে থাকতে,তাদের সুখ-দুঃখের অংশীদার হতে।ভোলা ৩ আসনে গ্রামগঞ্জে ঘুরে এলে বোঝা যায়। আপনি আমি ঘুরে আসার আগেই তিনি তৃণমূলে ঘুরে ঘুরে জনপ্রিয়তা ও সাধারণ মানুষের ভালোবাসা অর্জন করেছেন। আগের দিনে খলিফা, রাজা, বাদশাহরা রাতের অন্ধকারে প্রজাদের অভাব-অনটন, দুঃখ-দুর্দশা দেখতে বের হতেন। এ যুগে একজন সংসদ সদস‍্য হয়ে ও কোনো প্রকার নিরাপত্তা ব্যবস্থা না নিয়ে একা মোটরসাইকেল নিয়ে বের হয়ে যান গ্রামের পথে পথে। খোঁজ খবর নেন সাধারণ মানুষ,তৃণমূলের নেতাকর্মীদের।
তিনি সময় নিয়ে,উদ্দেশ্য নিয়ে, লক্ষ্য ঠিক করে পরিকল্পনা করে গণমানুষের রাজনীতি করতে এসেছেন। তিনি রাজনৈতিক পরিবারের সন্তান। অর্থ বিত্তে পূর্ব থেকেই সমৃদ্ধ। বেছে নিতে পারতেন আরাম-আয়েশ, ভোগ-বিলাসের জীবন। কিন্তু বঙ্গবন্ধুর আদর্শ লালন করা শেখ হাসিনার কর্মী হয়ে আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে তার পদচারণা শুরু হয়। জনগনের সাথে সরাসরি সম্পর্কের সেতুবন্ধন স্থাপন করেন তিনি। তিনি সবসময়েই নির্যাতনের শিকার বঞ্চিত নেতাকর্মীদের পাশে ছিলেন। তাদের উৎসাহ দিয়েছেন রাজনৈতিক একটি পরিবর্তনের জন্য। সেই পরিবর্তন এলো তিনি যখন সংসদ সদস‍্য হিসেবে ভোলা ৩ আসনে নির্বাচিত হন তখনই এবং সেই পরিবর্তনের অংশীদার হলেন তিনি। দল তার নেতৃত্বের দক্ষতা ও কাজের মূল্যায়নে তিনি একজন সফল সংসদ সদস‍্য।
ভোলা ৩ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন সবসময়ই বলেন আমি জনগনের সুখে-দুখে সবসময়ই পাশে থাকব।লালমোহন ও তজুমদ্দিন উপজেলাকে একটি আধুনিক উপজেলায় রূপান্তরিত করব ইনশাআল্লাহ। তিনি বলেন সকলস্তরের মানুষের মুখে হাসি ফোটানোই আমার উদ্দেশ্য,আমার একমাত্র চিন্তা।

Tags:

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *